২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ।৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ।মঙ্গলবার

বিশ্বে দৈনিক সংক্রমণে শীর্ষে জার্মানি, ‍মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

শ্বাসতন্ত্রের প্রাণঘাতী রোগ করোনার দৈনিক সংক্রমণের হিসেবে শুক্রবার বিশ্বের দেশসমূহের মধ্যে শীর্ষে ছিল জার্মানি; আর এই রোগে এদিন সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। এছাড়া আগের দিন বৃহস্পতিবারের তুলনায় শুক্রবার বিশ্বজুড়ে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা কিছুটা কমেছে।

মহামারির শুরু থেকে কোভিডে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিদের হালনাগাদ তথ্য প্রদানাকারী ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের জানাচ্ছে, শুক্রবার জার্মানিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৬ হাজার ৩৭ জন এবং এই রোগে দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ২৪৬ জনের। একই দিনে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৭০ জনের এবং করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ১ লাখ ৮ হাজার ৪৮০ জন।

জার্মানি ও যুক্তরাষ্ট্র ব্যতীত বিশ্বের আরও যেসব দেশে শুক্রবার করোনায় সংক্রমণ-মৃত্যুর ঊর্ধ্বগতি দেখা গেছে, সেই দেশসমূহ হলো— রাশিয়া (নতুন আক্রান্ত ১ লাখ ৮০ হাজার ৭১ জন, মৃত্যু ৭৮৪ জন), ব্রাজিল (নতুন আক্রান্ত ১ লাখ ২২ হাজার ৭৪৮ জন, মৃত্যু ১ হাজার ১১৪ জন), দক্ষিন কোরিয়া (নতুন আক্রান্ত ১ লাখ ৯ হাজার ৮২৮ জন, মৃত্যু ৪৫ জন), জাপান (নতুন আক্রান্ত ৭৫ হাজার ৬০৩ জন, ‍মৃত্যু ২৪৪ জন), তুরস্ক (নতুন আক্রান্ত ৮৭ হাজার ৪১১ জন, মৃত্যু ২৬৪ জন) এবং ফ্রান্স (নতুন আক্রান্ত ৮২ হাজার ৫৫৩ জন, মৃত্যু ৩০৪ জন)।

শুক্রবার বিশ্বে করোনায় নতুন আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ১৯ লাখ ২৪ হাজার ২৯১ জন এবং এই রোগে মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ২৫৯ জনের। আগের দিন বৃহস্পতিবার বিশ্বে করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছিলেন ২০ লাখ ৫৫ হাজার ৪১ জন এবং মৃত্যু হয়েছিল ১১ হাজার ৬৩৯ জনের।

তবে শুক্রবার বিশ্বজুড়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার রোগীর সংখ্যা বৃহস্পতিবারের তুলনায় কম ছিল। ওয়ার্ল্ডোমিটার্সের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার বিশ্বে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৩ লাখ ৮৭ হাজার ৪৯৮ জন। আগের দিন এই সংখ্যা ছিল ২৫ লাখ ২৮ হাজার ৯৮৩ জন।

শুক্রবারের পর বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা পৌঁছেছে ৪২ কোটি ১৯ লাখ ৪৪ হাজার ১০৪ জন এবং এই রোগে মোট মৃতের সংখ্যা হয়েছে ৫৮ লাখ ৯১ হাজার ৯০৯ জন।

বিশ্বে বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগী আছেন ৬ কোটি ৯৫ লাখ ৫৯ হাজার ৭৪৬ জন। এই রোগীদের মধ্যে করোনার মৃদু উপসর্গ বহন করছেন ৬ কোটি ৯৪ লাখ ৭৭ হাজার ২২৫ জন এবং গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় আছেন ৮২ হাজার ৫২১ জন। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে বিশ্বের প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। করোনায় প্রথম মৃত্যুর ঘটনাটিও ঘটেছিল চীনে।

তারপর অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। পরিস্থিতি সামাল দিতে ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। কিন্তু তাতেও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় অবশেষে ওই বছরের ১১ মার্চ করোনাকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে সেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর নির্ঘুম রাত কাটছে এলাকাবাসীর

কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : ১ মাসে ১৬ টি ছাগল চুরি
পর থেকে চোর আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটচ্ছে গ্রামের ছাগল মালিকরা। মইদুল ইসলামের ২ টি ছাগল চুরি হয়েছে। এর ধারাবাহিক এই চুরির ঘটনার পর থেকে গ্রামজুড়ে চোর আতঙ্ক
বিরাজ করছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, কোটচাঁদপুর উপজেলার পাঁচলিয়া গ্রাম থেকে গত ১মাসে ৯ বাড়ি থেকে ১৬ টি ছাগল চুরির ঘটনা ঘটেছে। পল্লী চিকিৎসক আব্দুল আলিমের ১টি, তহিদুল ইসলামের ১টি, আশরাফুল ইসলামের ৩টি, সাইদুল ইসলামের
১টি, জহির হোসেনের ১টি, দুরুদ মন্ডলের ১টি, তসলেম উদ্দিনের ২টি, ও আবু কালামের ২টি রয়েছে। চোরেরা ছাগল মেরে রেখে যায় আরও ১টি।
মইদুল ইসলাম বলেন, গত ১০ বছর ধরে আমি পঙ্গু হয়ে ঘরে পড়ে আছি। মাঠে অল্প একটু জমি আছে, তা থেকে খাবার ধানটা কোন রকম আসে। বাজার আর অন্যান ব্যয়ভার চলতো
আমার ছাগল বিক্রি করে। ছাগল ২টি পেয়েছিলাম আমি ছাগল পোষানি থেকে। তাও নিয়ে গেল চোরেরা। তিনি বলেন,
৩ছেলে মেয়ে আর স্ত্রী নিয়ে আমার সংসার। সংসারের আয় করি আমি একাই। এদিকে একের পর এক ছাগল চুরির ঘটনায় নির্ঘুম রাত কাটছে ওই গ্রামের ছাগল মালিক লালন খন্দকার ও মমিনুর রহমান। তারা বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে
ছাগল পালন করে আসছি। এমন সমস্যা হয়নি কোনদিন
প্রায় দিন না ঘুমিয়ে রাত কাটছে এলাকাবাসীর। এ ব্যাপারে দোড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল জলিল বিশ্বাস বলেন, চুরির ঘটনা ঘটেছে আমি জানি। বিষয়টি উপজেলা আইন শৃঙ্খলা সভায় তোলা হয়েছে। তবে আজ পর্যন্ত কোনো
ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। কোটচাঁদপুরের লক্ষ্মীপুর পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক ( এসআই) মিজানুর রহমান বলেন, চায়ের দোকানে গল্প শুনেছি ১/২ টা ছাগল চুরি হয়েছে। এই ব্যাপারে আজ পর্যন্ত কেউ কোন অভিযোগ ও করেনি

ঝিনাইদহের৷কোটচাদপুর ১ মাসে ১৬ টি ছাগল চুরি