১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ।৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ।রবিবার

পোল্ট্রিশিল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন দেশের প্রান্তিক খামারিরা।

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

মোঃ মহাসিন মিয়া-দীঘিনালা।

 

দেশের পোল্ট্রিশিল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন দেশের হাজার হাজার প্রান্তিক খামারিরা। এমনটাই জানালেন আন্দোলনের উদ্যোক্তা, ইসলাম মল্লিক।

 

তিনি বলেন, সারা দেশের পোল্ট্রির প্রান্তিক খামারিরা যে পরিমার খরচ ও খাবার ব্যয় করে পোল্ট্রি পেছনে তা পোল্ট্রি মুরগি বিক্রি করে ওঠাতে পারছেন না। এর কারণ হলো পোল্ট্রির দাম বাজারে একদম কম হওয়া

 

পোল্ট্রি শিল্পের সাথে জড়িয়ে আছে দেশের হাজার হাজার প্রান্তিক খামারিগণ। বাংলাদেশ পোল্ট্রি শিল্পকে নিয়ে গড়ে ওঠা বেশ কয়েকটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোল্ট্রি গ্রুপ থেকে উঠে আসে আর্তনাদ ও প্রান্তিক খামারীদের কান্নার আওয়াজ।

 

এবং প্রান্তিক খামারিগণ দাবি করেন, আমাদের এই শিল্পের নেই কোনো অভিভাবক, নেই কোন কেন্দ্রীয় কমিটি এবং নেই কোনো জেলা-উপজেলা কমিটি। অভিভাবকহীন এই খামারিদের নেই কোনো আস্থার প্রতিক। তাই আমরা আরো ক্ষতির মুখে পড়ছি। তাছাড়া বিগত প্রায় দু’বছরে করোনার কারণে আমাদের এক কথায় দেয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছে।

 

বেশ কয়েকবার প্রান্তিক খামারিগণ চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় মানববন্ধন রেলি ও তীব্র প্রতিবাদ সহ আন্দোলন করে, তাতেও সরকার ও দেশের প্রতিষ্ঠান এগিয়ে আসেনি আমাদের পাশে।

 

তথ্য সূত্র জানিয়েছে, এই শিল্পের সাথে জড়িয়ে অর্থনৈতিক, ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে আজ দিশেহারা খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার দীঘিনালা উপজেলার কবাখালী ইউনিয়নের বাসিন্দা এবং প্রান্তিক পোল্ট্রি খামারি মোঃ ইসলাম মল্লিক। যখনি আওয়াজ উঠল দেশের পোল্ট্রিশিল্পের বেহাল দশা তখনি আন্দোলন ও প্রতিবাদে ঝাপিয়ে পড়ে দেশের হাজার হাজার পোল্ট্রি খামারিরা। একাদিকবার কঠোর আন্দোলান, মানববন্ধন এবং মিডিয়ায় প্রচার হওয়ার পরও প্রান্তিক খামারিগণ দেশের কারো ধারা কোনো উপকৃত হয়নি।

 

ঠিক তখনই মোঃ ইসলাম মল্লিক নামের এই ব্যক্তি সারা বাংলাদেশের পোল্ট্রিশিল্পের সাথে জড়িয়ে থাকা প্রান্তিক খামারিগণদের নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আন্দোলনের ডাক দেন। তার ডাকে সাড়া দিয়ে সারা বাংলাদেশ থেকে ব্যাপক সাড়া দেন অর্থনৈতিক ক্ষতিগ্রস্ত সহ সকল প্রকার প্রান্তিক পোল্ট্রি খামারিগণ।

 

মোঃ ইসলাম মল্লিক আরো বলেন, স্থানীয় পোল্ট্রি শিল্পের সাথে জড়িয়ে থাকা ডিলাররা ৫০/ কেজি ওজনের এক বস্তা খাবারের দাম রাখেন ২৫০০/ শো টাকা এবং প্রতি পিস বয়লার মুরগির বাচ্চা দাম রাখেন, ৩৫/ টাকা কখনো ৪০/ টাকা কখনো ৪৫/ টাকা কখনো ৫০/টাকা যখনি, খামারিদের খামার ব্যবসার সিজন আসে ঠিক তখন বাচ্চার দাম রাখে ৬৫/ টাকা থেকে ৭০/ টাকা পর্যন্ত, শুধুমাত্র কুরবানীর ঈদের আগে ১০/থেকে ১৫/ দিনের জন্য বাচ্চার দাম নেমে আসে ২০/থেকে ৩০/টাকার মধ্যে।

 

পোল্ট্রির বাচ্চার গুণগত মান ভালো থাকেনা। খাবারের গুণগত মান ভালো থাকেনা। যেভাবে ইচ্ছে ওভাবেই তারা খাবার উৎপাদন করছে। এবং স্থানীয় ডিলাররা খাবারের গায়ে নির্দিষ্ট দাম থেকে সর্বোচ্চ ২০০/ টাকা পর্যন্ত বেশি রাখছে খামারিদের কাছ থেকে।

 

সারা বাংলাদেশের প্রান্তিক খামারিদের এই আন্দোলনের উদ্যোক্তা হিসেবে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রান্তিক খামারিদের সাথে পরামর্শ করে তিনি দাবি করেন, ব্রয়লার মুরগির ফিড বা খাদ্যের দাম মিনিমাম মূল্য ২’হাজার থেকে ২১’শত টাকার মধ্যে রাখতে হবে এবং সোনালী লেয়ার ও অন্যান্য মুরগির ফিড বা খাদ্যের দাম প্রতি বস্তায় ২’শত থেকে ৩’শত টাকা কমাতে হবে।

 

এবং ব্রয়লার, লেয়ার সোনালী সহ সকল ফিড বা খাদ্যের গুণগত মান বৃদ্ধি করতে হবে। ব্রয়লার লেয়ার সোনালী সহ সকল প্রকার মুরগির বাচ্চার বাৎসরিক দাম নির্ধারণ করতে হবে। মিনিমাম মূল্য ২৫(পঁচিশ) থেকে ৩০(ত্রিশ) টাকার মধ্যে বাচ্চার দাম রাখতে হবে।

 

যেহেতু ডিম বাৎসরিক ভাবে এক দামে বিক্রি করা হয় এবং ব্রয়লার লেয়ার সোনালী সহ সকল প্রকার হ্যাচারি উৎপাদিত বাচ্চার মান বৃদ্ধি করতে হবে। এবং ব্রয়লার মুরগি পাইকারি ১’শত ত্রিশ থেকে চল্লিশ টাকা দাম নির্ধারণ করতে হবে। সোনালী মুরগী ২’শত বিশ থেকে ত্রিশ টাকা দাম নির্ধারণ করতে হবে এবং অন্যান্য মুরগি আলোচনা সাপেক্ষে।

 

ইসলাম মল্লিক একটি অংক দেখিয়ে বলেন, বাচ্চার দাম বাৎসরিক এবারেজ ৪৫ টাকা পিস ধরলে ১’হাজার বাচ্চার দাম আসে ৪৫’হাজার হাজার টাকা। ব্রয়লার মুরগির ১’হাজার বাচ্চার পেছনে পঞ্চাশ কেজি ওজনের পঞ্চাশ বস্তা খাদ্য খাওয়াতে হয় বস্তা প্রতি ২৫’শত টাকা করে। কোম্পানি দুর্বল বাচ্চা উৎপাদন করায় সেক্ষেত্রে মেডিসিন ব্যবহার করা হয় মিনিমাম ১৫(পনেরো) থেকে ২০(বিশ) হাজার টাকার মধ্যে।

 

সেই ক্ষেত্রে বাচ্চা, খাদ্য ও মেডিসিন সহ দাম আসে = ১’লক্ষ ৯০’হাজার টাকা।আরো আনুষাঙ্গিক খরচ যেমনঃ বিদ্যুৎবিল ভুসি গাড়ি ভাড়া খরচ ১২’শত টাকা সে ক্ষেত্রে মোট খরচ=২’লক্ষ ২’হাজার টাকা। ১’হাজার পিস মুরগি থেকে ৯’শত পঞ্চাশ পিস মুরগি গড় ওজন ১.৭×৯৫০=১৬১৫/এই ১৬১৫/কেজি মুরগি বিক্রি দাম ১২০×১৬১৫=১৯৩,৮০০/এক হাজার বাচ্চা মোট খরচ ২’লক্ষ ২’হাজার টাকা। ১’হাজার বাচ্চা মোট বিক্রি ১৯৩,৮০০/টাকা

লস হল= ৯,০০০/টাকা।

 

যদি এই হয় দেশের পোল্ট্রিশিল্পের সাথে জড়িয়ে থাকা প্রায় ৬০(ষাট) লক্ষ প্রান্তিক খামারিদের অবস্থা তাহলে বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষের কাছে প্রশ্ন রেখে বলছি কি করবে সর্বশেষে এই শিল্পের সাথে জড়িয়ে থাকা ৬০ লক্ষ প্রান্তিক খামারিগণ।

 

তিনি আরো বলেন, প্রান্তিক খামারিগণ লস খেতে খেতে কিছু কিছু ডিলারের কাছ থেকে পঞ্চাশ হাজার থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত দেনা হয়ে অন্য কোন ডিলারের কাছ থেকে বাচ্চা তুলতে না পেরে দেওলিয়া হয়ে গেছেন।

 

এভাবে চলতে চলতে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে দেশেন এই শিল্পের সাথে জড়িয়ে থাকা আমিষ উৎপাদিত প্রান্তিক খামারিগণ, অর্থনৈতিক প্রভাব পড়ছে ৬০(ষাট)লক্ষ প্রান্তিক খামারি পরিবারের উপর। তাই বলছি এখনি সময় এদেরকে হাত ধরে তুলে এই শিল্প শক্ত হাতে ধরে রাখার জন্য না হলে একসময় ক্ষুদ্র গোষ্ঠী ও মধ্যবিত্ত পরিবার সহ কখনোই মিটাতে পারবে না তাদের আমিষের চাহিদা।

 

ইসলাম মল্লিক আরো বলেন আমাদের পোল্ট্রিশিল্পের বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটি সহ ৬৪/ জেলায় ৬৪/টি ও প্রত্যেকটি উপজেলা সহ কমিটি দিতে হবে।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে সেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

মুক্তাগাছা প্রতিনিধি:

মুক্তাগাছায় চাচা শ্বশুরের দায়ের কোপে ভাতিজা বউ শিউলী আক্তার খুন হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলার বাঁশাটি ইউনিয়নের গোয়ারী উত্তর পাড়া গ্রামে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানাযায়, উপজেলার গোয়ারী উত্তর পাড়া গ্রামের বাসিন্দা সিএনজি চালক শরিফুল ইসলামের স্ত্রী শিউলী আক্তার (৩০) স্বপরিবারে ঘুমাচ্ছিল। এ সময় তার চাচা শ্বশুর মৃত নেওয়াজ আলীর পুত্র সোলায়মান মিয়া তাদেরকে ডাকা ডাকি করে ঘর থেকে বের হতে বলে। দরজা খুলে শরিফুল ও তার স্ত্রী শিউলী ঘর থেকে বের হলে সোলায়মান তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালজ করে। এক পর্যায়ে সোলায়মানের হাতে থাকা দা দিয়ে এলোপাতারি কোপাতে শুরু করে। সোলায়মান দা’ দিয়ে শিউলীর ঘাড়ে কোপ দিলে শিউলী ঘটনাস্থলেই মারা যায়। পরে সোলায়মান দা নিয়ে শরিফুলকে ধাওয়া দিলে শরিফ প্রাণ বাঁচাতে পুকুরে লাফ দিয়ে প্রণে বাঁচায়। পরে প্রতিবেশীরা এসে তাকে উদ্ধার করে।
নিহত শিউলী একই উপজেলার মুজাটি গ্রামের মৃত হামেদ আলীর মেয়ে। গত ১২ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। শিউলর ৫ মাসের মেয়ে শিশুসহ ৩ কন্যা সন্তান রয়েছে।
উল্লেখ্য গত শুক্রবার বিকেলে শিউলীর ৬ বছরের মেয়ে লামিয়া এর সাথে সোলায়মানের পুত্রের তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে ঝগড়া হয়। সেই ঝগড়ার জেরেই সকালে নিহতের বাড়িতে এসে তাদের ঘুম থেকে ডেকে এ খুনের ঘটনা ঘটান।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে মুক্তাগাছা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) জহিরুল ইসলাম মুন্না জানান, শনিবার সকালে উপজেলার গোয়ারী উত্তর গ্রামে হত্যার ঘটনা ঘটে। থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে পাঠায়। মামলার প্রস্তুতি চলছে। এঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

মুক্তাগাছায় চাচা শ্বশুড়ের দায়ের কোপে ৩ সন্তানের জননী খুন।

অররবিন্দ কুমার মণ্ডল, কয়রা, খুলনা ঃ

প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে আসাদুল ইসলাম (১৯) নামে কয়রার এক কলেজছাত্র গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

৯ জুলাই, মঙ্গলবার ভোরে আসাদুলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সে খুলনার কয়রা উপজেলার মহেশ্বরীপুর গ্রামের নজরুল ইসলাম সরদারের ছেলে। আমাদী জায়গীমহল খান সাহেব কোমর উদ্দীন কলেজে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন তিনি। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এক বছর আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি মেয়ের সঙ্গে পরিচয় হয় আসাদুলের। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন কলেজছাত্র আসাদুল। কিন্তু প্রেমিকা বিয়েতে রাজি না হওয়ায় তাকে ভিডিও কলে রেখে নিজ ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে।

কলেজছাত্রের প্রতিবেশী ও স্থানীয় ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান বলেন, আসাদুল ইসলামের সঙ্গে উত্তরবঙ্গের একটি মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে জানতাম। মেয়েটির সঙ্গে কয়েকবার দেখাও করেছেন তিনি। পরে ঐ মেয়েটিকে বিয়ের জন্য আসাদুল তার পরিবারকে জানান। তার পরিবার তাদের বিয়েতে রাজি হয়। কিন্তু পরে জানতে পারি মেয়েটি রাজি হয়নি। হয়তো সেই দুঃখে তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

কয়রা থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) ইব্রাহিম হোসেন জানান, কলেজছাত্রটি আলাদা ঘরে থাকতেন। সেখানেই তার মরদেহ পাওয়া গেছে। তার সোজাসুজি রাখা ভিডিও কল চালু অবস্থায় একটি মোবাইল ফোন পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে অপর প্রান্তে থাকা কাউকে ভিডিও কলে রেখে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি। তার অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে কয়রার যুবকের গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা।

মহম্মদপুরের দীঘা ইউনিয়নের দীঘা গ্রামে স্বামী -স্ত্রী বিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা – ভিভিও লিংক https://www.facebook.com/share/v/9BEDCU22mRgdpqjn/?mibextid=oFDknk

মহম্মদপুরের দীঘা ইউনিয়নের দীঘা গ্রামে স্বামী -স্ত্রী বিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা – ভিভিও লিংক https://www.facebook.com/share/v/9BEDCU22mRgdpqjn/?mibextid=oFDknk

মহম্মদপুরের দীঘা ইউনিয়নের দীঘা গ্রামে স্বামী -স্ত্রী বিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা – ভিভিও লিংক https://www.facebook.com/share/v/9BEDCU22mRgdpqjn/?mibextid=oFDknk

মহম্মদপুরের দীঘা ইউনিয়নের দীঘা গ্রামে স্বামী -স্ত্রী বিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা – ভিভিও লিংক

মহম্মদপুরের দীঘা ইউনিয়নের দীঘা গ্রামে স্বামী -স্ত্রী বিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা – ভিভিও লিংক