১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ।৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ।মঙ্গলবার

চুকনগরে বিষমুক্ত বেগুন চাষে স্বাবলম্বী কৃষকরা।

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

সরদার বাদশা,নিজস্ব প্রতিনিধি।

 

বেগুনকে শীতকালীন সবজি বলা হয়, কিন্তু আমাদের দেশে সারা বছরই বেগুন পাওয়া যায়। দেশে বিভিন্ন জাতের বেগুন পাওয়া যায়। এই সবজিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘এ’, যা চোখের জন্য খুব উপকারী।এই ডিজিটাল যুগে আমাদেরকে চোখের পরিশ্রম করতে হয় খুব বেশি। এতে চোখের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। বেগুন আপনার চোখ ও ত্বকের জন্য বয়ে আনবে সুফল।বেগুনে আছে মরণব্যাধি ক্যান্সার ও ডায়াবেটিস সহ বিভিন্ন রোগের প্রতিরোধক, সেই বেগুন এখন চাষ হচ্ছে ডুমুরিয়া উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে, বেগুনের চাষ করে ভাগ্যের পরিবর্তন হচ্ছে কৃষকদের ,বিশেষ করে ডুমুরিয়া উপজেলার ৫নম্বর আটলিয়া ইউনিয়নের চুকনগর , বরাতিয়া,গোবিন্দকাটি গ্রামের কৃষকদের। তারা বিষমুক্ত বেগুন চাষ করে প্রতিবিঘা জমিতে এক মৌসুমে ৩-৪ লক্ষ টাকা বিক্রয় করতে সক্ষম হচ্ছে। সরজমিনে দেখা যায় গোবিন্দকাটি ইমরান হোসেন লেখাপড়ার পাশাপাশি তাদের ২২ শতক জমিতে বেগুনের চাষ করেছে। যার প্রতিটা গাছে বর্তমানে ১০-১৫টি বেগুনের ফলন ধরেছে। তিনি জানায় এ বেগুন গাছ রোপণের মাত্র এক থেকে দেড় মাস পর প্রথমবার প্রায় ৩মণ বিষমুক্ত বেগুন উত্তোলন করেছেন তিনি।

৫দিন পর ৬মণ বেগুন উত্তোলন করেন এবং তার ৬দিন পর ৮মণ বেগুন উত্তোলন করেছেন। ইমরান আরো জানায় বর্তমানে পাইকারি বাজার মূল্য প্রতি কেজি ৩৫-৪০ টাকা অথ্যাৎ প্রতিমণ বেগুন ১৪শত’ টাকা দরে ব্যাপারিদের কাছে বিক্রয় করছেন। ৫দিন পর,পর বেগুন তোলা হয়।

 

এছাড়া বরাতিয়া গ্রামের মিঠুন সরকার তার ২০শ শতক জমিতে , গোবিন্দকাটি গ্রামের শহীদুল্লাহ এক বিঘা জমিতে, মনিরুজ্জামান রাজু ৩বিঘা জমিতে, হাবিবুর রহমান ২০শতক জমিতে, কার্তিক মল্লিক ,২২শতক জমিতে, বজলুর রহমান, একবিঘা জমিতে বারি ও বিডি জাতের বেগুনের বীজ, লাগিয়েছেন, এই জাতের বেগুন বীজ লাগালে

বিষমুক্ত বেগুনের চাষ করতে সফল হওয়া যায় ও অল্প সময়ে বেগুন ফসল উত্তোলন করে বাজারে বিক্রি করা যায়।

 

মনিরুজ্জামান রাজু আরো জানান সবজির পুষ্টি ও গুনগত মান ঠিক রাখতে রাসায়নিক কীটনাশক ব্যাতিরেকে বালাই দমনে জৈব বালাই নাশক ব্যাবহার করছেন। এর পাশাপাশি বালাই বিস্তার রোধে ব্যাবহার করছেন সেক্সফেরোমন ফাঁদ।

এই ফাঁদে সাদা টবের নিচের অংশে ভিতরে রয়েছে ডিটারজেন্ট মিশ্রত পানি। উপর অংশ ভিতরে বিশেষ কায়দায় পলিথিন দিয়ে মুড়িয়ে ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে স্ত্রী পোকার গন্ধ মিশ্রণ পাউডার! ফলে স্ত্রী পোকার আকর্ষনে পুরুষ পোকা দ্রুত টবের ভিতর প্রবেশ করা মাত্র পানির মধ্যে পড়ে মারা যায়। এতে পোকামাকড়ের বংশ বিস্তার রোধে সহায়ক ভুমিকা রাখে। আর এর ফলে রাসায়নিক কীটনাশক ব্যাবহারের মাত্রা ৭০ শতাংশ হ্রাস পায়। এ পদ্ধতি ব্যবহারের মাধ্যমে বিষ মুক্ত সবজি উৎপাদন করা সম্ভব হয়েছে।

ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি দপ্তরের দিক নির্দেশনায় কৃষক মনিরুজ্জামান রাজু, ইমরান হোসেন, আব্দুল মান্নান ঢালীসহ উপজেলার প্রায় ৬০ শতাংশ কৃষক সেক্সফেরমন ফাঁদ ও জৈববালই নাকশ ব্যাবহার করে সবজি উৎপাদনের লক্ষ মাত্রা সফল হয়েছেন। চলতি মৌসুমে বেগুনের বাজার মুল্য ভালো থাকায় অধিক লাভবান হবেন, বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেছেন কৃষক মনিরুজ্জামান রাজুসহ চাষিররা।

 

ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ মোসাদ্দেক হোসেন জানান,আমরা উপজেলার প্রায় একশ’ জন কৃষককে বারি ও বিডি জাতের বেগুনের বীজ সম্প্রসারণের কাজ করেছি। তারই ফলশ্রুতিতে গোবিন্দকাটি গ্রামের কয়েক জন কৃষককে এ জাতের বীজ দেয়া হয়েছে। এ বেগুনের চাষ করলে জমিতে কীটনাশক অনেক কম লাগে। ফলন হয় অনেক বেশি। তাই আগামীতে আমরা উপজেলার প্রত্যেক কৃষকের কাছে এ জাতের বেগুনের বীজ পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করব। কৃষি অফিসার আরো বলেন ডুমুরিয়া কৃষকরা অনেক এগিয়ে যাচ্ছেন। আধুনিক প্রযুক্তিতে স্বাস্থ্য সম্মত উপায়ে সবজি উৎপাদন হচ্ছে। বালাই দমনে রাসায়নিক কীটনাশক ব্যাতিরেকে সেক্সফেরমণ ফাঁদ ও জৈব বালাই নাশক ব্যাবহার করে বেগুনসহ বিভিন্ন প্রকার সবজি উৎপাদনের লক্ষমাত্রা পূরণ করতে সক্ষম হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে সেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর নির্ঘুম রাত কাটছে এলাকাবাসীর

কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : ১ মাসে ১৬ টি ছাগল চুরি
পর থেকে চোর আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটচ্ছে গ্রামের ছাগল মালিকরা। মইদুল ইসলামের ২ টি ছাগল চুরি হয়েছে। এর ধারাবাহিক এই চুরির ঘটনার পর থেকে গ্রামজুড়ে চোর আতঙ্ক
বিরাজ করছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, কোটচাঁদপুর উপজেলার পাঁচলিয়া গ্রাম থেকে গত ১মাসে ৯ বাড়ি থেকে ১৬ টি ছাগল চুরির ঘটনা ঘটেছে। পল্লী চিকিৎসক আব্দুল আলিমের ১টি, তহিদুল ইসলামের ১টি, আশরাফুল ইসলামের ৩টি, সাইদুল ইসলামের
১টি, জহির হোসেনের ১টি, দুরুদ মন্ডলের ১টি, তসলেম উদ্দিনের ২টি, ও আবু কালামের ২টি রয়েছে। চোরেরা ছাগল মেরে রেখে যায় আরও ১টি।
মইদুল ইসলাম বলেন, গত ১০ বছর ধরে আমি পঙ্গু হয়ে ঘরে পড়ে আছি। মাঠে অল্প একটু জমি আছে, তা থেকে খাবার ধানটা কোন রকম আসে। বাজার আর অন্যান ব্যয়ভার চলতো
আমার ছাগল বিক্রি করে। ছাগল ২টি পেয়েছিলাম আমি ছাগল পোষানি থেকে। তাও নিয়ে গেল চোরেরা। তিনি বলেন,
৩ছেলে মেয়ে আর স্ত্রী নিয়ে আমার সংসার। সংসারের আয় করি আমি একাই। এদিকে একের পর এক ছাগল চুরির ঘটনায় নির্ঘুম রাত কাটছে ওই গ্রামের ছাগল মালিক লালন খন্দকার ও মমিনুর রহমান। তারা বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে
ছাগল পালন করে আসছি। এমন সমস্যা হয়নি কোনদিন
প্রায় দিন না ঘুমিয়ে রাত কাটছে এলাকাবাসীর। এ ব্যাপারে দোড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল জলিল বিশ্বাস বলেন, চুরির ঘটনা ঘটেছে আমি জানি। বিষয়টি উপজেলা আইন শৃঙ্খলা সভায় তোলা হয়েছে। তবে আজ পর্যন্ত কোনো
ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। কোটচাঁদপুরের লক্ষ্মীপুর পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক ( এসআই) মিজানুর রহমান বলেন, চায়ের দোকানে গল্প শুনেছি ১/২ টা ছাগল চুরি হয়েছে। এই ব্যাপারে আজ পর্যন্ত কেউ কোন অভিযোগ ও করেনি

ঝিনাইদহের৷কোটচাদপুর ১ মাসে ১৬ টি ছাগল চুরি