১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ।৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ।সোমবার

আজ আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস সুন্দরবন অঞ্চলের মুন্ডা সম্প্রদায়ের নিয়ে গবেষণা প্রয়োজন।

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

রনজিৎ বর্মন শ্যামনগর(সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি ঃ

আজ ৯ আগষ্ট আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস। বিশে^র অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালিত পালিত হচ্ছে। এই দিনে আদিবাসী সংগঠন গুলি ও আদিবাসীরা একত্রিত হয়ে তাদের বিভিন্ন দাবী নামা পেশ পেশ করে থাকেন অধিকার আদায়ে।

 

দিবসটি উদ্যাপনের মূল লক্ষ্য হল আদিবাসীদের জীবনধারা,মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার, আদিবাসীদের ভাষা সংস্কৃতি, শিক্ষা প্রভূতি সম্পর্কে সবাইকে অবহিতকরা বা সচেতন করে তোলা।

 

দিবসটি উপলক্ষে সাতক্ষীরার সুন্দরবন উপকূলের আদিবাসী মুন্ডা সংস্থা সামস এক কর্মসূচীর আয়োজন করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আলোচনাসভা, যুবআদিবাসীদের নিয়ে কর্মপরিকল্পনা প্রভূতি।

 

উপকূলের আদিবাসীরা কেমন আছেন এ বিষয়ে সুন্দরবন আদিবাসী মুন্ডা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক কৃষ্ণ পদ মুন্ডা জনায় সুন্দরবন উপকূলে মুন্ডা, মাহাতো, রাজবংশী, বাগদি, বুনো, উঁরাও সম্প্রদায় বাস করে। যাদের কথা অনেকেই ভূলে গেছে। বাংলাদেশে বসবাসরত আদিবাসীদের দুইটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এক পার্বত্য অঞ্চল বা পাহাড়ী অঞ্চল আর অপরটি হল সমতল অঞ্চল। পার্বত্য অঞ্চল বা পাহাড়ী অঞ্চলের আদিবাসীদের কথা অনেকেই জানে। তবে সমতল অঞ্চলের রাজশাহী এবং দিনাজপুর এলাকার আদিবাসীদের কথা অনেকেই জানলেও সুন্দরবন এলাকার আদিবাসীদের কেহ খোঁজ রাখে না বলে দাবী জানায়। বাংলাদেশে বৃহত্তর রাজশাহী, নওগাঁ, দিনাজপুর, নাটোর, পাবনা, জয়পুরহাট, ময়মনসিংহ, সাভার, গাজীপুর, সিরাজগঞ্জ, ঠাকুরগাঁ, পঞ্চগড়, সিলেট, ঝিনাইদহ, ফরিদপুর, খুলনা,সাতক্ষীরা সহ অন্যান্য অঞ্চলে মুন্ডারা বাস করে। তারা যেখানে থাকুক আদিবাসী মুন্ডাদের স্বাতন্ত্র বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তাদের আচার-আচরণ, ভাষা,সংস্কৃতি সামাজিক অবকাঠামো এখনও ভিন্ন রয়েছে বলে তাদেরকে বাঙ্গালী থেকে সহজেই পৃথক করা যায়।

 

কৃষ্ণ পদ মুন্ডা জানায় সুন্দরবন অঞ্চলের মুন্ডাদের নিয়ে খুব বেশী গবেষণা হয়নি। তাদের নিয়ে গবেষণা করাটা জররুী বলে মত প্রকাশ করে। সুন্দরবন অঞ্চলের মুন্ডাদের লিখিত কোন ধর্ম গ্রন্থ নেই। তারা প্রকৃতি পূজারী। তবে কারো কারো মতে মুন্ডাদের দেবতা হল বিরসা মুন্ডা। যিনি ১৮৭৫ সালে ভারতের রাঁচি শহরে জন্ম গ্রহণ করে। তারা পূর্ব পুরুষদের স্বরণ করে সকল পূজা করে।আদিবাসী মুন্ডাদের সুশীল সমাজের ব্যক্তিরা বুনো,কুলি বলে ডাকত যা এখনও প্রচলিত রয়েছে। নির্বাহী পরিচালক জনায়, মুন্ডা সম্প্রদায়ের সাথে এখনও বাঙ্গালীরা ভাল ভাবে মিশতে চায়না। মুন্ডারা শামুক, ইঁদুর, শুকর,কচ্ছপ,কঁকড়া,বনগাড়া,বেজি ইত্যাদি খায় বলে মুন্ডাদের সাথে হয়ত এ কারণে মিশতে চায় না। এমনকি বাঙ্গালী নারী পুরুষরা মুন্ডা ছেলে মেয়েদের সাথে তাদের ছেলে মেয়েদের মিশতে দিতে চায় না সহজে এ সকল খাওয়ার কারণে।

 

মুন্ডা শব্দটি নিয়ে জানতে চাইলে জানায় মুন্ডা শব্দের অর্থ নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য রয়েছে। বয়স্ক ব্যক্তিদের মতে মুন্ডা শব্দের অর্থ ’মুড়হা’ শব্দ থেকে এসেছে। এখানে মুন্ডা ভাষায় মুড়হা বলতে গাছের মূলকে বোঝানো হয়েছে। অনেকে বলেন মুড় থেকে মুন্ডা শব্দটি এসেছে। আবার অনেকের মতে মুড় অর্থ মাথা। মুন্ডাদের শারীরিক গঠন সম্পর্কে জানা যায় কালো রং, উচচতা মাঝারী, কালো বা কোঁকড়ানো চুল,ঠোঁট পুরু ,মাথার খুলি দীর্ঘ আকৃতির, নাক চেপ্টা। তবে গবেষকদের মতে মুন্ডাদের আকৃতি ভিন্নও থাকতে পারে বলে জানায়।

 

এ অঞ্চলে মুন্ডাদের বসবাস সম্পর্কে জানায় মুন্ডা সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রবীন ব্যাক্তি অশি^নী মুন্ডার (৭৬)মতে তাদের পিতা মহের পূর্ব পুরুষরা এখান থেকে আনুমানিক ২২০ কুড়ি বছর পূর্বে ভারতের ঝাড়খন্ড,উড়িষ্যা, বিহার, রাচি অঞ্চল থেকে সুন্দরবন অঞ্চলে এসেছে। তৎকালিন জমিদাররা সুন্দরবন অঞ্চল আবাদ করার জন্য ও লাঠিয়াল বাহিনী হিসাবে ব্যবহার করার জন্য তাদেরকে এ অঞ্চলে আনা হয় বলে দাবী করে। যার কারণে তারা সাহসী ও পরিশ্রমী। তাদের বাপ দাদারা গল্প করতেন সুন্দরবনের বাঘ, হরিণ বা হিং¯্র জন্তুর সাথে লড়াই করে অস্থিত্বকে টিকিয়ে রেখেছে। পূর্বে তাদের অনেক জমি বা সম্পত্তি ছিল। দিনে দিনে এগুলি হারিয়ে গেছে বিভিন্ন কারণে। মুন্ডাদের পোষাক ছিল সিমীত। পূর্বে তারা কোমরের নিচে ও বুকে একটু কাপড় জড়িয়ে রাখত। এখন এটি পরিবর্তন হয়েছে।

 

বর্তমান সময়ে সুন্দরবন অঞ্চলে মুন্ডাদের নানান সমস্যা রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। যেমন মুন্ডাদের জমি রক্ষা করার লড়াই, বিশুদ্ধ পানির সমস্যা, আর্থিক সংকট, লবনাক্ততার মধ্যে সবজি চাষ, দূর থেকে পানি সংগ্রহ করা, কর্মক্ষেত্র কমে যাওয়া, ভাষা ও সংস্কৃতি টিকিয়ে রাখার লড়াই সহ অন্যান্য সংগ্রাম করতে হচ্ছে বলে জানায়।

 

মুন্ডাদের এহেন অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য মুন্ডাদের অর্থনৈতিক উন্নতি , সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি,শিক্ষার হার বৃদ্ধি, ভাষা ও সংস্কৃতি টিকিয়ে রাখতে গবেষণা কেন্দ্র বা চর্চাকেন্দ্র সৃষ্টি করা প্রয়োজন বলে জানায়। মুন্ডাদের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধিতে, বা অর্থনৈতিক উন্নয়নে তথা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখতে সকলকে এগিয়ে আসার আহব্বান জানান সামসের নির্বাহী পরিচালক কৃষ্ণ পদ মুন্ডা।

 

ছবি- সুন্দরবন উপূলীয় শ্যামনগরে মুন্ডা সম্প্রদায়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের একটি চিত্র।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে সেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

মুক্তাগাছা প্রতিনিধি:

মুক্তাগাছায় চাচা শ্বশুরের দায়ের কোপে ভাতিজা বউ শিউলী আক্তার খুন হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলার বাঁশাটি ইউনিয়নের গোয়ারী উত্তর পাড়া গ্রামে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানাযায়, উপজেলার গোয়ারী উত্তর পাড়া গ্রামের বাসিন্দা সিএনজি চালক শরিফুল ইসলামের স্ত্রী শিউলী আক্তার (৩০) স্বপরিবারে ঘুমাচ্ছিল। এ সময় তার চাচা শ্বশুর মৃত নেওয়াজ আলীর পুত্র সোলায়মান মিয়া তাদেরকে ডাকা ডাকি করে ঘর থেকে বের হতে বলে। দরজা খুলে শরিফুল ও তার স্ত্রী শিউলী ঘর থেকে বের হলে সোলায়মান তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালজ করে। এক পর্যায়ে সোলায়মানের হাতে থাকা দা দিয়ে এলোপাতারি কোপাতে শুরু করে। সোলায়মান দা’ দিয়ে শিউলীর ঘাড়ে কোপ দিলে শিউলী ঘটনাস্থলেই মারা যায়। পরে সোলায়মান দা নিয়ে শরিফুলকে ধাওয়া দিলে শরিফ প্রাণ বাঁচাতে পুকুরে লাফ দিয়ে প্রণে বাঁচায়। পরে প্রতিবেশীরা এসে তাকে উদ্ধার করে।
নিহত শিউলী একই উপজেলার মুজাটি গ্রামের মৃত হামেদ আলীর মেয়ে। গত ১২ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। শিউলর ৫ মাসের মেয়ে শিশুসহ ৩ কন্যা সন্তান রয়েছে।
উল্লেখ্য গত শুক্রবার বিকেলে শিউলীর ৬ বছরের মেয়ে লামিয়া এর সাথে সোলায়মানের পুত্রের তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে ঝগড়া হয়। সেই ঝগড়ার জেরেই সকালে নিহতের বাড়িতে এসে তাদের ঘুম থেকে ডেকে এ খুনের ঘটনা ঘটান।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে মুক্তাগাছা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) জহিরুল ইসলাম মুন্না জানান, শনিবার সকালে উপজেলার গোয়ারী উত্তর গ্রামে হত্যার ঘটনা ঘটে। থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে পাঠায়। মামলার প্রস্তুতি চলছে। এঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

মুক্তাগাছায় চাচা শ্বশুড়ের দায়ের কোপে ৩ সন্তানের জননী খুন।

অররবিন্দ কুমার মণ্ডল, কয়রা, খুলনা ঃ

প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে আসাদুল ইসলাম (১৯) নামে কয়রার এক কলেজছাত্র গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

৯ জুলাই, মঙ্গলবার ভোরে আসাদুলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সে খুলনার কয়রা উপজেলার মহেশ্বরীপুর গ্রামের নজরুল ইসলাম সরদারের ছেলে। আমাদী জায়গীমহল খান সাহেব কোমর উদ্দীন কলেজে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন তিনি। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এক বছর আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি মেয়ের সঙ্গে পরিচয় হয় আসাদুলের। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন কলেজছাত্র আসাদুল। কিন্তু প্রেমিকা বিয়েতে রাজি না হওয়ায় তাকে ভিডিও কলে রেখে নিজ ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে।

কলেজছাত্রের প্রতিবেশী ও স্থানীয় ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান বলেন, আসাদুল ইসলামের সঙ্গে উত্তরবঙ্গের একটি মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে জানতাম। মেয়েটির সঙ্গে কয়েকবার দেখাও করেছেন তিনি। পরে ঐ মেয়েটিকে বিয়ের জন্য আসাদুল তার পরিবারকে জানান। তার পরিবার তাদের বিয়েতে রাজি হয়। কিন্তু পরে জানতে পারি মেয়েটি রাজি হয়নি। হয়তো সেই দুঃখে তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

কয়রা থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) ইব্রাহিম হোসেন জানান, কলেজছাত্রটি আলাদা ঘরে থাকতেন। সেখানেই তার মরদেহ পাওয়া গেছে। তার সোজাসুজি রাখা ভিডিও কল চালু অবস্থায় একটি মোবাইল ফোন পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে অপর প্রান্তে থাকা কাউকে ভিডিও কলে রেখে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি। তার অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

প্রেমিকাকে ভিডিও কলে রেখে কয়রার যুবকের গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা।